পিতা হারানোর শোক । অমূল্য রঞ্জন বিশ্বাস

ছোট্ট খুকু–মা—-ওরা কারা

বাবাকে কাঁধে করে

নিয়ে গেল নদীর চরে

খোল, করতাল,হরিনামের ধ্বনি শুনতে পাই।

দৌড়ে গেল বাবার ধারে

চক্ষু ভাসে অশ্রু নীড়ে

চিৎকার করে বলে,আমার বাবাকে ছাড়ো সবাই।।

ফিরিয়া মায়ের কাছে মাটিতে লুটায়।

বলে মা,ওরা বাবাকে সব সবে ধরে নিয়ে যায়।।

মা বলে-ওরে সোনা খোকন

এটাই বোধহয় নিয়তির খেলা

যে চলে যায় ফিরে না তো

সে আর কোন বেলা

হৃদয়ে ব্যথা নিয়ে পুত্র কে বোঝায়।।

পুত্র বলে-মা—

বাবা কি আসবেনা ফিরে

নাকি- চলে গেছে বহু দূরে

কে বুঝিবে আমার মনের কথা।

কিছু বায়না ধরলে পরে

চুম্বন নিত চুপটি করে

বুকে জড়াইয়া ধরে বলিত ভালোবেসে কথা।।

এনে দাও মা বাবাকে

একবার জরাইয়া ধরি

লুটায়ে কাঁদে সে যে ধুলায় যায় গড়াগড়ি

একবার ভালোবেসে চুম্বন নাও গালে আমার।

চাইবো না কিছু তোমার ধারে

বলছি আমি প্রতিজ্ঞা করে

জ্বালাতন করবো না আমি কোন দিন তো আর।।

অগ্নি প্রজ্বলিত হলে চিৎ কারে কাঁপে যেন শ্মশান।

ধরো ধরো সবই পুরিয়া গেল আমার বাবা

ছাই হয়ে গেল আজ তাহার দেহ খান।।

মা—-আঃ ভগবান

এইটুকু শিশুকে কি করে বোঝাই

শক্তি দাও ঠাকুর, হাউ হাউ কাঁদে তাহার মা

ছুটিয়া যায় সবার ধারে

বলে বাঁচাও আমার বাবার প্রাণ।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *